বৃহস্পতিবার, ২৫শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

চাঁদা নেওয়া বন কর্মকর্তাসহ দুই কর্মচারী প্রত্যাহার

 

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধিঃ

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলা বন কর্মকর্তাসহ দুই কর্মচারীকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে লক্ষ্মীপুর জেলা বন কর্মকর্তা এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তাদের তিনজনের বিরুদ্ধে মহাসড়কে পরিবহনে চাঁদাবাজির ঘটনা তদন্তে সত্যতা পাওয়া যায়। এতে বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নোয়াখালী বিভাগীয় কার্যালয়ে তাদের প্রত্যাহার করা হয়। রোববার থেকে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে রামগতি উপজেলা বন কর্মকর্তা মো. বাসেদ হোসেনকে।

নোয়াখালী কার্যালয়ে প্রত্যাহারকৃতরা হলেন- রামগঞ্জ উপজেলা বন কর্মকর্তা মিজানুর রহমান, কর্মচারী সাইফুল ইসলাম (নৌকা চালক) ও মো. রুহুল আমিন (বনপ্রহরী)।

উল্লেখ্য, ২১ ফেব্রুয়ারি ‘মহাসড়কে বন কর্মকর্তার চাঁদাবাজি’ শিরোনামে কালবেলায় সংবাদটি প্রকাশিত হলে তোলপাড় শুরু হয়। এতে টনক নড়ে জেলা প্রশাসন ও বন অধিদপ্তরের। সংবাদ প্রকাশের পরই অধিদপ্তর দুই কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে জেলা বন কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দেন।

পগত তিন মাস ধরে রামগঞ্জ উপজেলা বন কর্মকর্তা মিজানুর রহমান তার কর্মচারী সাইফুল ইসলামকে দিয়ে রায়পুর-রামগঞ্জ মহাসড়কের পদ্দা বাজারে প্রতিদিন ২১-২৫টি গাছ বহনকারী ট্রলি ও ট্রাক থেকে ৫০০-৭০০ করে টাকা তুলতেন। এ নিয়ে রায়পুর ও রামগঞ্জের করাতকল মালিক ও লাকড়ি ব্যবসায়ীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

এ ছাড়াও লাইসেন্স না করায় সেই বন কর্মকর্তা হুমকি দিয়ে রামগঞ্জ শহরের সড়কের পাশে লাকড়ি ব্যবসায়ী মনিরের কাছ থেকে ৩ হাজার টাকা, তার পাশের লাকড়ি ব্যবসায়ী জসিমের কাছ থেকে ৮ হাজার টাকা, কাটাখালির করাতকল মালিক থেকে ২০ হাজার টাকা, দিঘিরপাড়ের করাতকল মালিক সেলিম থেকে ১০ হাজার টাকা আদায় করেন।

লক্ষ্মীপুর জেলা বন কর্মকর্তা ফিরোজ আলম জানান, রামগঞ্জ উপজেলা বন কর্মকর্তা মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে সড়কে চাঁদাবাজির যুগান্তরের রিপোর্টি সত্য পেয়েছি। বন কর্মকর্তাসহ দুই কর্মচারীকে নোয়াখালী বিভাগীয় কার্যালয়ে প্রতাহার করা হয়েছে। তদন্ত চলমান রয়েছে। অধিদপ্তর থেকে আরও ব্যবস্থা নিবে। আপাতত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করবেন রামগতি উপজেলা কর্মকর্তা বাসেদ। কালবেলা ও তাদের প্রতিনিধি মাজেদকে ধন্যবাদ জানাই।

উল্লেখ্য, বন কর্মকর্তা মিজানুর রহমান প্রায় তিন মাস আগে রাঙ্গামাটি জেলা থেকে বদলি হয়ে রামগঞ্জ উপজেলায় যোগদান করেন।

দেশ জার্নাল /সো আ

দেশ জার্নাল বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো।

----- সংশ্লিষ্ট সংবাদ -----