বৃহস্পতিবার, ২৫শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে বিএনপির কার্যালয় ভাঙচুরের অভিযোগ

 

নুরুল আমিন ভূইয়া দুলাল নিজস্ব প্রতিনিধি

 লক্ষ্মীপুরের কমলনগরের চৌধুরী বাজারে বিএনপির কার্যালয় ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে।
ছাত্রলীগকে উদ্দেশ্য করে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা তারেক রহমান রকির বক্তব্যের জেরে রোববার (২৭ আগস্ট) সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটেছে।

বিএনপির অভিযোগ, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ হারুন এবং চর মার্টিন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেনের নেতৃত্বে উপজেলার চরমার্টিন ইউনিয়ন বিএনপির কার্যালয়ে ভাঙচুর করা হয়। তবে ছাত্রলীগ এ দায় অস্বীকার করেছে।

এদিকে এ ঘটনায় স্থানীয় বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন লক্ষ্মীপুর-৪ (কমলনগর-রামগতি) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য বিএনপি নেতা আশরাফ উদ্দিন নিজান।
প্রতিবাদে রাতেই চৌধুরী বাজারে বিক্ষোভ মিছিল করে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। সেখানে পরিস্থিতি থমথমে ছিল।
অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে সেখানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়।
জানা গেছে, গত ২৫ আগস্ট (শুক্রবার) বিকেলে কমলনগরের চরমার্টিন ইউনিয়নের ১, ২, ৩, ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মীসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিএনপি এবং স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা অংশ নেয়। অনুষ্ঠানে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহ্বায়ক ও স্থানীয় ইউপি সদস্য তারেক রহমান রকি তার বক্তব্যের মাঝে স্থানীয় ছাত্রলীগকে উদ্দেশ্য করে বক্তব্য দেন।
বক্তব্যের এক পর্যায়ে তিনি বলেন, “চরমার্টিন ইউনিয়নে ছাত্রলীগের গুন্ডারা তুচ্ছ সামান্য কথা নিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের গায়ে হাত তুলেছে। আমি বলতে চাই- আজ থেকে প্রতিবাদ নয়, প্রতিরোধ গড়ে তুলবেন। ছাত্রলীগকে মার্টিন ইউনিয়ন থেকে বিতাড়িত করে দিবেন। এতে আমি আর্থিক, মানসিক সহযোগিতা করবো। ”
স্থানীয় লোকজন জানায়, রকির বক্তব্যকে ঘিরে গত দুইদিন ধরে উপজেলাব্যাপী আলোচনা ও সমালোচনার জন্ম নিয়েছে। তার বক্তব্যের প্রতিবাদ জানায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ।
রোববার (২৭ আগস্ট) বিকেলে উপজেলা ছাত্রলীগের আয়োজনে স্থানীয় মুন্সির হাট বাজারে প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সেখান থেকে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা মোটরসাইকেলে করে চৌধুরী বাজারে গিয়ে ইউনিয়ন বিএনপির কার্যালয় ভাঙচুর করে।

উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য সচিব গিয়াস উদ্দিন মাহমুদ বলেন, আমরা দলীয় কোনো কর্মসূচি করতে গেলে ছাত্রলীগ বাধা দেয়। তাই অভ্যন্তরীণভাবে কর্মসূচি করতে হয়। এ জন্য আমাদের স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা তারেক রহমান রকি ছাত্রলীগকে নিয়ে কর্মী সভায় বক্তব্য রেখেছে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ হারুন এবং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বেলালের নেতৃত্বে রোববার সন্ধ্যা ৬টার দিকে ২৫-৩০ জন লোক নিয়ে চৌধুরী বাজারে এসে আমাদের দলীয় কার্যালয় ভাঙচুর করে। পরে আমাদের দলীয় নেতাকর্মীরা বাজারে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেছে। পুলিশ আমাদের বলেছে ভাঙচুরের জন্য থানায় মামলা করতে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ হারুন বলেন, স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা তারেক রহমান রকি ছাত্রলীগকে নিয়ে কূরুচিপূর্ণ মন্তব্য করেছে। এটার প্রতিবাদে আমরা সমাবেশ করেছি। তাদের দলীয় কার্যালায় আমরা ভাঙচুর করিনি।
কমলনগরের চৌধুরী বাজার হাজিরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক (ইনচার্জ) মনিরুল ইসলাম বলেন, বিএনপি দলীয় কার্যালয় ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। তবে কারা ভাঙচুর করেছে, তা আমরা দেখিনি। বিএনপি লোকজন বাজারে অবস্থান নিলে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখে।
এ ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছে লক্ষ্মীপুর-৪ (কমলনগর-রামগতি) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপির নির্বাহী কমিটির শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সহ-সম্পাদক আশরাফ উদ্দিন নিজান।
তিনি জানান, উপজেলার চর মার্টিন চৌধুরী বাজার অবস্থিত বিএনপির অফিস ভাঙচুরের ঘটনায় তীব্র নিন্দা, ও ধিক্কার জানাচ্ছি। আওয়ামী যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সন্ত্রাসীরা পরিকল্পিতভাবে সন্ত্রাসী কার্যক্রমসহ শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান, সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ছবি পদদলিত এবং বিএনপি অফিস ভাঙচুর করে। ন্যাক্কারজনক হিংসাত্মক ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আহ্বান জানাই।

দেশ জার্নাল বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো।

----- সংশ্লিষ্ট সংবাদ -----